ফুলমণি ও করুনার বিবরণ -হানা ক্যাথেরীন ম্যলেন্স আচার্য সুনীতিকুমার চট্টোপাধ্যায় লিখিত পরিচিতি সহ চিত্তরঞ্জন বন্দ্যোপাধ্যায় সম্পাদিত

Call / WhatsApp : +91 9563646472

To purchase / enquire about the book, send a WhatsApp message or call between 11 AM and 11 PM.

Description

এই উপন্যাসের পরিচিতিতে আচার্য সুনীতিকুমার চট্টোপাধ্যায় ১ডিসেম্বর়১৯৫৭তে লিখছেন-
“এক দিকে বঙ্কিমচন্দ্র (১৮৩৮-১৮৮৪) ও অন্য দিকে মধুসদন (১৮২৪-১৮৭৩)। প্রস্তুতির
যুগের শেষ ভাগে যাঁহারা বাঙ্গালা ভাষায় গদ্য সাহিত্যের সাধনা করিতেছিলেন তাঁহাদের মধ্যে কতকগুলি কৃতি সাধক নিঃসন্দেহ ভাবে অখ্যাত ও অজ্ঞাত লুপ্ত-নাম রহিয়া গিয়াছে। ইহাদের মধ্যে “ফুলমণি ও করুণার বিবরণ” রচয়িত্ৰী শ্ৰীমতী হানা ক্যাথেরীন ম্যলেন্স-এর নাম বিশেষ ভাবে উল্লেখযােগ্য।১৮৫২ সালে কলিকাতার খ্রীষ্টান ট্র্যাক্ট অ্যাণ্ড বুক সােসাইটি কর্তৃক “ফুলমণি ও করুণার বিবরণ” প্রকাশিত হইয়াছিল। এই ধরণের বই বাঙ্গালায় প্রথম। ইহার
পর্বে বাঙ্গালীর সমাজ লইয়া ভবানীচরণ বন্দ্যোপাধ্যায় প্রমুখ দুই চারিজন লেখক কিছু, কিছু, লিখিয়াছিলেন। কিন্তু এভাবে বাঙ্গালা দেশের বিশেষ কোন অংশে একটি নবগঠিত বিশিষ্ট সমাজের জীবন ও চিন্তা অবলম্বন করিয়া বই লিখিবার প্রয়াস দেখা যায় নাই। বইখানির ভাষা ভালই বলিতে হইবে। সাধু,ভাষার ছাঁচে ঢালা ইহার আধার একশ’ বছর পূর্বেকার বাঙ্গালা। (যেমন, কলিকাতার বাঙ্গালায় “আসিল” অর্থে “এল”—লেখিকা সাধুভাষানুমােদিত রূপ
দিয়াছেন “আইল” ;—তিনি কোথাও “আসিল” রূপ ব্যবহার করেন নাই, কারণ ইহা কলিকাতার কথ্যভাষায় অজ্ঞাত ছিল)।”……..

Be the first to review “ফুলমণি ও করুনার বিবরণ -হানা ক্যাথেরীন ম্যলেন্স আচার্য সুনীতিকুমার চট্টোপাধ্যায় লিখিত পরিচিতি সহ চিত্তরঞ্জন বন্দ্যোপাধ্যায় সম্পাদিত”